ক্রেডিট ইউটিলাইজেশন রেশিও: এটা কীভাবে কাজ করে আর কীভাবে একে উন্নত করা যায়

CRIF Credit Utilization Ratio

আপনার ক্রেডিট স্কোরকে জানার অন্যতম এক মূল উপাদান হল ক্রেডিট ইউটিলাইজেশন রেশিও, তাই এটা কীভাবে কাজ করে তা জানাটা খুবই দরকার। কেননা ক্রেডিট স্কোর যদি ভাল থাকে, তাহলে আপনি অনেক বেশি পরিমাণে ঋণ পেতে পারবেন, আর সুদের হারও হবে কম। কিন্তু ক্রেডিট স্কোর কম থাকলে আপনি সহজে নিজের আর্থিক আশা-আকাঙ্ক্ষাগুলোকে পূরণ করতে পারবেন না। ক্রেডিট ইউটিলাইজেশন সম্পর্কে আপনার যা যা জানা দরকার সেই সব সম্পর্কে আমরা এই ব্লগে আলোচনা করার চেষ্টা করব, সেই সঙ্গে থাকবে এই বিষয়গুলোও:

  • ক্রেডিট ইউটিলাইজেশন রেশিও মানে কী?
  • ক্রেডিট ইউটিলাইজেশন রেশিও কীভাবে হিসাব করে বের করা হয়?
  • ভাল ক্রেডিট ইউটিলাইজেশন রেশিও মানে কী?
  • ক্রেডিট ইউটিলাইজেশন রেশিওকে কীভাবে উন্নত করতে হয়?


প্রথমেই জেনে নেওয়া যাক ক্রেডিট ইউটিলাইজশন রেশিও মানে কী

আপনার ক্রেডিট লিমিট অনুযায়ী আপনার ক্রেডিট কার্ড আউটস্ট্যান্ডিঙেক রেশিওই হল আপনার ক্রেডিট ইউটিলাইজেশন রেট, যাকে কখনও কখনও আপনার ক্রেডিট ইউটিলাইজেশন রেশিওও বলা হয়ে থাকে। যে-স্কোরিং মডেল ব্যবহার করা হয়, তার ভিত্তিতে ক্রেডিট স্কোর 20 থেকে 30 শতাংশ পর্যন্ত হতে পারে। আপনি যদি কোনও দিনও ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করে না-থাকেন আর তাতে যদি কোনও ব্যালেন্স না-থাকে, তাহলে আপনার ক্রেডিট ইউটিলাইজেশন রেশিও হবে শূন্য। আপনি যদি সাধারণভাবে এক বা একাধিক কার্ডে একটি ব্যালেন্স নিয়ে চলেন, তাহলে আপনি নিজেরই কোনও একটা প্রাপ্তিসাধ্য ক্রেডিট ‘ব্যবহার’ বা ‘ইউটিলাইজ’ করছেন- যা ঋণদাতারা আর ক্রেডিট ব্যুরোগুলো নজরে রাখবে। আপনার ক্রেডিট কার্ডে একবার উচ্চতর ইউটিলাইজেশন রেট হলে তার প্রভাব আসলে আপনার ক্রেডিট স্কোরে না-ও পড়তে পারে, নিয়মিত ক্রেডিট ইউটিলাইজেশন রেট ক্রমাগত উচ্চতর থাকলে আপনার ক্রেডিট স্কোরে বিরূপ প্রভাব পড়বেই।

 ক্রেডিট ইউটিলাইজেশন রেশিও কীভাবে হিসাব করে বের করা হয়?

প্রত্যেক ক্রেডিট কার্ডের (ক্রেডিট লিমিট দিয়ে ক্রেডিট ব্যালেন্সকে ভাগ করে) আর একটি সামগ্রিক ভিত্তিতে (মোট ক্রেডিট লিমিট দিয়ে সবগুলো ক্রেডিট কার্ডের মোট ব্যালেন্স ভাগ করে) ক্রেডিট ইউটিলাইজেশন রেশিও হিসাব করে বের করা হয়।

যেমন:

 আউটস্ট্যান্ডিং ব্যালেন্সক্রেডিট লিমিটক্রেডিট ইউটিলাইজেশন রেশিও
কার্ড 1₹0₹50,0000%
কার্ড 2₹80,000₹100,00080%
কার্ড 3₹10,000₹75,00013.3%

মোট ক্রেডিট কার্ড ব্যালেন্স/মোট প্রাপ্তিসাধ্য ক্রেডিট    =   ক্রেডিট ইউটিলাইজেশন রেশিও

এই ক্ষেত্রে মোট ক্রেডিট ইউটিলাইজেশন রেশিও হবে 40%।

 

ভাল ক্রেডিট ইউটিলাইজেশন রেশিও মানে কী?

চলতি নিয়মে ক্রেডিট ইউটিলাইজেশন থাকে 30 থেকে 40 শতাংশের মধ্যে। এটা আলাদা আলাদা প্রত্যেকটা কার্ড আর আপনার মোট ক্রেডিট ইউটিলাইজেশন রেশিওর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। উল্লিখিত শতকরার চেয়ে আপনার ক্রেডিট স্কোর বেশি হলেই এই স্কোর নীচে নেমে যাবে, কেননা ঋণদাতারা এটাকে ঋণের প্রচণ্ড ক্ষুধা থাকা আচরণ বলে ধরে নেবেন।

এর মানে অবশ্য এই নয় যে, কোনও কার্ডের ক্রেডিট ইউটিলাইজেশন 40 শতাংশের বেশি কেউ কোনও দিনও করতে পারবে না। গত 6 থেকে 12 মাসে উচ্চ ইউটিলাইজেশন গতানুগতিক ধারা মনে হলে ক্রেডিট স্কোরে তার প্রভাব পড়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

সবশেষে, আপনার ক্রেডিট ইউটিলাইজেশন রেট উন্নত করার কথা আর এইসব বুদ্ধি খাটিয়ে এগিয়ে গেলে আপনি নিজের ক্রেডিট স্কোর ভাল করে নিতে পারবেন:

  1. বেশি ঘন ঘন ক্রেডিট কার্ডের পাওনা মেটান- বিভিন্ন লেনদেনে কার্ডের নানা সুযোগ-সুবিধা বা বেনিফিট পাওয়ার জন্য আপনি হয়তো নিজের ক্রেডিট কার্ডগুলো ব্যবহার করে থাকেন। কিন্তু নিজের ক্রেডিট কার্ড আউটস্ট্যান্ডিংকে সর্বনিম্নের চেয়েও কম মাত্রায় রাখার চেষ্টা করুন আর ঘন ঘন ক্রেডিট কার্ডের পাওনা মেটান। যেমন ধরুন, ক্রেডিট কার্ড স্টেটমেন্ট মাসে-মাসে দেওয়া হলেও আপনি 10 দিন অন্তর অন্তর ক্রেডিট কার্ডের পাওনা মেটাতে থাকুন। এইভাবে আপনার ক্রেডিট লিমিটও পুরায় ভর্তি হতে থাকবে আর তখন ক্রেডিট ইউটিলাইজেশন রেটগুলোও কম দেখাবে।
  2. উচ্চতর ক্রেডিট লিমিটের সুবিধা নিন- আপনার হয়তো মনে হল যে, আপনি নিজের ক্রেডিট কার্ডের বকেয়া আর আপনার নিয়মিত পাওনা মেটানোর বিষয় দু’টিকে বেশ ভালভাবেই সামলাতে পারবেন, তখন আপনি আপনার ব্যাঙ্কের থেকে উচ্চতর ক্রেডিট লিমিট চাইতে পারেন। ক্রেডিট কার্ড ইউজেজের মাত্রা একই থাকবে, কিন্তু এর ইউজেবল লিমিট বেড়ে যাওয়ার ফলে ক্রেডিট ইউটিলাইজেশন রেট নিজে নিজেই বেড়ে যাবে। অবশ্য এমন অবস্থায় আপনাকে সাবধান থাকতে হবে, কেননা ক্রেডিট লিমিট বেড়ে গেলেই আপনার খরচ করার প্রবণতাও বেড়ে যেতে পারে।
  3. লিমিটগুলোকে ভালভাবে ম্যানেজ করার জন্য একাধিক ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করুন- আপনার কাছে যদি একাধিক ক্রেডিট কার্ড থাকে তাহলে সমস্ত লেনদেনেই একটি প্রাইমারি ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করার বদলে বিভিন্ন ধরনের লেনদেনে আলাদা আলাদা কার্ড ব্যবহার করার চেষ্টা করুন। এর ফলে আপনার একটা ক্রেডিট কার্ডের ইউটিলাইজেশন রেট খুব বেড়ে যাবে না আর অন্যান্য কার্ডে এই রেট খুব কম হবে না বা একেবারে শূন্য থেকে যাবে না, বরং সমস্ত কার্ডেরই ইউটিলাইজেশন রেট একই সঙ্গে কম থাকবে।
  4. পাওনা মেটানোর পর কার্ডগুলোকে খোলা রাখুন- কার্ডের পাওনা মেটানোর পর আপনি নিজের মোট ব্যালেন্সকে কমিয়ে দিলেন। কার্ড খোলা রেখে দিলে আপনি নিজের মোট ক্রেডিট লিমিটকে ঠিক রাখতে পারবেন- এইভাবে আপনার ক্রেডিট ইউটিলাইজেশন রেশিও কম থাকবে।

নিজের ক্রেডিট স্কোরের উপর আপনাকে নিয়মিত নজর রাখতে হবে আর ক্রেডিট ব্যবহারের অভ্যাসকে আরও ভাল করে নিজের ক্রেডিট স্কোরকে ভাল রেখে চলার চেষ্টা করে যান। আপনি CRIF দিয়ে নিজের ক্রেডিট স্কোর চেক করে নিতে পারেন এখানে
Check Your Credit Score Now

 

Facebooktwittergoogle_pluslinkedinmail
youtube